ছাত্রকে দিয়ে যৌ’ন চা’হিদা মেটাতেন শিক্ষিকা !

যখন ক্লাসে কেউ থাকত না তখনই এক ছা’ত্রকে ডে’কে নিয়ে পাশের রুমে চলে যেতেন শিক্ষিকা।সেখানেই নিজের যৌ’ন চা’হিদা ঐ ছাত্রকে দিয়ে মেটাতেন শিক্ষিকা। আর এমনই চা’ঞ্চল্যকর খবর প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক সংবাদসংস্থা ‘এপি’।

২৩ বছর ব’য়সী ঐ শিক্ষিকার নাম ব্রিয়ানা নিকোলা স্ট্যানলি। তিনি নর্থ ক্যারোলিনার বাসিন্দা। আর নি’র্যাতিত ছাত্রের ব’য়স ১২ বছর। প্রকাশিত খবরে জানানো হয়, ক্লাসে যখন কেউ থাকত না তখনই ঐ ছাত্রকে নিয়ে পাশের রুমে চলে যেত অ’ভিযুক্ত শিক্ষিকা।

দীর্ঘদিন তাকে ভ’য় দেখিয়ে এই কাজ করে আসছিলেন তিনি।ভ’য়ে ওই কিশোর প্রথমে কাউকে বলার সা’হস না পেলেও, কয়েক দিন আগে বাড়িতে গোটা ঘ’টনাটি জানায়। ওই কিশোরের পরিবারের অভি’যোগের ভিত্তিতে ত’দন্তে নামে পু’লিশ।

আরো পড়ুনঃ যে সকল কারণে বাঙালি নারী অন্যদের চেয়ে আলাদা

বাঙালি নারীরা পৃথিবীর যে প্রান্তেই থাকুক না কেন তাদের মধ্যে বাঙ্গালিপনা কিংবা বাঙ্গালিত্তটি সব সময় রয়ে যায় অটুট। তাইতো অসংখ্য মানুষের মাঝে একজন বাঙালি নারীকে খুজে বের করা যাবে অনায়াসে। একজন বাঙালি নারীর মধ্যেই কখনো দেখা যায় মমতাময়ী ভূমিকা আবার কখনো দেখা যায় রুদ্রমূর্তিভাব। তাইতো আমরা বলে থাকি বাঙালি নারী রহস্যময়ী।

১. বাঙালি নারীর রয়েছে অসাধারণ ব্যক্তিত্বএকজন বাঙালি নারীর রয়েছে অসাধারণ ব্যক্তিত্ব। এই অসাধারণ ব্যক্তিত্বের জন্যই রাষ্ট্রীয় দরবার থেকে রসুইঘর সকল স্থানে বাঙালি নারীর জয়জয়কার।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি সময় ধরে শ’ক্ত হাতে সকল দু’র্যোগ মোকাবেলা করে বাংলাদেশ শা’সন করছেন নারী। বাংলাদেশের স্বাধীনতায়ও রয়েছে বাঙালি নারীদের অবদান। অসাধারণ ব্যক্তিত্বের জন্যই বাঙালি নারী সম্প’র্কে প্রচলিত রয়েছে, যে নারী চুল বাঁধতে পারে সে আবার দেশও শাসন করতে জানে।

২. বাঙালি নারীর রয়েছে অনুক’রণীয় বাঙালি ফ্যাশন
বাঙালি নারীর সবচেয়ে সুন্দর বিষয় হলো তাদের শাড়ি। অন্য যেকোনো জাতির চেয়ে এটি তাকে এগিয়ে রাখবে এই কারণে যে এক টু’করা কাপড়কে এত সুন্দরভাবে পরিধান করার ক্ষমতা আর কারো নেই। এটি বাঙালি নারী অনন্য ফ্যাশন। বাসন্তী উৎসব আর আমাদের প্রাণপ্রিয় পহেলা বৈশাখে নারীদের এই শাড়ীর পোশাক বি’মোহিত করার মতো।

৩. বাঙালি নারী ভোলে না নিজের সংস্কৃতি
বাঙালি নারী যেখানেই থাকুক না কেন সে তার সংস্কৃতি ভোলে না। তাইতো বাঙালি নারী আলাদা। বাঙালি নারীর এই সংস্কৃতির বীজ রয়েছে তাদের র’ক্তের সাথে মিশে। তাইতো তারা যে কোন পরিবেশেই বড় হোক না কেন বিয়ের পর শ্বশুর-শাশুড়ির সামনে ঠিকই মাথার ঘোমটা টেনে দেয়। পায়ে হাত দিয়ে কদমবুচি করে।

৪. সকল বিষয়ে আগ্রহী বাঙালি নারী
পাশের বাড়ি কি প্রেসিডেন্টের দরবারমহল সব জায়গার কথা নখদর্পণে থাকে বাঙালি নারীর। সকল বিষয়ে জানার আগ্রহ রয়েছে বাঙালি নারীদের। তাইতো আমরা পেয়েছি বেগম রোকেয়া থেকে শুরু করে প্রীতিলতার মতো নারীদের।

৫. সকল কাজের কাজী বাঙালি নারী
সকল কাজে সমানভাবে পারদর্শী বাঙালি নারী। একজন বাঙালি নারীর পক্ষেই সম্ভব সকালবেলা স্বামী সন্তানদের নিজের হাতে তৈরি নাস্তা খাইয়ে অফিসে যাওয়া এবং সেখান থেকে ফিরে আবার পরিবারের মানুষদের জন্য খাবার তৈরি করা। হাজার খুঁজলে পৃথিবীর আর কোথাও এমনটি পাবেন না।

একজন বাঙালি নারী কতগুলো ভূমিকায় কি অসাধারণ ভুমিকাই না পালন করে থাকেন কখনো বোন, কখনো বন্ধু, কখনো প্রেয়সী, কখনো স্ত্রী, কখনো কন্যা, কখনো মমতাময়ী মা। এতো সুন্দর এই সম্পর্কগুলো অসাধারণভাবে ফুটিয়ে তোলা সম্ভব শুধুমাত্র বাঙালি নারীর পক্ষেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *